img

করিনা পুত্র তৈমুর আলি খানের জনপ্রিয়তা যেকোনও সেলেবের জনপ্রিয়তাকেও হার মানাবে। তবে তৈমুরের সঙ্গে সব সময় পাপারাত্‍জির ক্যামেরায় যিনি ধরা দেন তিনি হলেন তৈমুরের ন্যানি সাবিত্রী। তিনিও পাপারাত্‍জি ও সোশ্যাল মিডিয়ায় দৌলতে সব সময়ই খবরের শিরোনামে উঠে আসেন। বেশ কয়েকমাস আসে বিশেষ সূত্রে জানা যায়, তৈমুরের ন্যানির বেতন দেশের অনেক আমলার থেকেও বেশি। জানা যায় তৈমুরের ন্যানি নাকি মাসে দেড় লক্ষ টাকা বেতন পান।

সম্প্রতি, টক শো 'পিঞ্চ বাই আরবাজ'-এ এবিষয়ে করিনাকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বেশ বিরক্ত হন। প্রশ্ন করা হয় তৈমুরের ন্য়ানির বেতন নাকি দেশের অনেক আমলার থেকেও বেশি? করিনা পাল্টা প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়ে বলেন, ''তাই নাকি? কী করে যে লোকে এসব জানতে পারে বুঝি না। কারোর এবিষয়ে প্রশ্ন থাকে মন্ত্রীসভায় গিয়ে করুন। আমার সন্তান কীভাবে ভালো থাকবে সুরক্ষিত থাকবে সেসবের উপরে কোনও মূল্য আমার কাছে নেই। এক্ষেত্রে শিশু ভালো থাকবে সেটাই শেষ কথা। উনি আমার ছেলেকে সবসময় দেখেন ওনাকে বেতন দেওয়া আমার কর্তব্য।''

প্রসঙ্গত, জুহুর একটি সংস্থার মাধ্যমে নাকি করিনা তৈমুরের জন্য ন্যানি খুঁজে পেয়েছিলেন। এই একই সংস্থার থেকে ন্যানি পেয়েছিলেন সোহা আলি খান ও তুষার কাপুর সহ আরও অনেক তারকাই।

 

 

আরবাজ করিনাকে বলেন, তিনি যেহেতু সোশ্যাল মিডিয়ায় নেই তাই হয়ত অনেক কিছুই তাঁর নজর এড়িয়ে যাচ্ছে। তৈমুর কী করছে না করছে সব সময় সোশ্যল মিডিয়ায় সবাই উঁকিঝুঁকি মারছে। করিনা পাল্টা উত্তর দেন, '' আমার মনে হয় না এটা উঁকিঝুঁকি মারা মনে হয় কেউ এই তথ্য জানিয়ে দিচ্ছে। আমার ব্যক্তিগত বিষয় সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করা আমি পছন্দ করি না।''

 

 

করিনাকে নাকি ভীষণই উদ্ধত। সোশ্যাল মিডিয়ায় করিনাকে প্রায়ই আক্রমণ করা হয়। এপ্রসঙ্গে করিনা বলেন, ''প্রত্যেক তারকারই একটি ইমেজ আছে। আমারও সেটা আছে। বিশেষ করে আমি যখন একটি ফিল্মি পরিবার থেকেই উঠে এসেছি। অনেকেই মনে করে এরা উদ্ধত। যে মানুষ তোমাকে ঠিক করে জানেই না, তাঁদের মন্তব্য করাই উচিত নয়। তাঁরা তো জানেই না আমি ঠিক কেমন।''

এই বিভাগের আরও খবর


সর্বশেষ