Ads
img

খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শুভ বড়দিন আজ। খ্রিস্ট ধর্মের প্রবর্তক যিশু খ্রিস্ট এই দিনে ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে বেথলেহেমে জন্মগ্রহণ করেন। পৃথিবীতে ন্যায় ও শান্তি প্রতিষ্ঠা করাই ছিল তার অন্যতম ব্রত। বিপন্ন ও অনাহারী মানুষের জন্য মহামতি যিশু নিজেকে উৎসর্গ করে গেছেন। জীবনাচরণ ও দৃঢ় চারিত্রিক গুণাবলির জন্য মানব ইতিহাসে তিনি আজ অমর।

বড়দিন উপলক্ষে খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বীসহ বিশ্ববাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে পৃথক বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাষ্ট্রপতি বলেন, এ পৃথিবীতে মহামতি যিশু খ্রিস্টের আবির্ভাব ছিল এক অবিস্মরণীয় ঘটনা। তিনি ছিলেন মানবজাতির মুক্তির দূত, আলোর দিশারি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে সকল ধর্মের মানুষের সমান অধিকার ও মর্যাদা রয়েছে। ঐতিহ্যগতভাবে এ দেশে সকল ধর্মীয় উৎসব আনন্দঘন পরিবেশে পালিত হয়। বড়দিন দেশের খ্রিস্টান ও অন্যান্য সম্প্রদায়ের মধ্যকার বিরাজমান সৌহার্দ ও সম্প্রীতিকে আরও সুদৃঢ় করবে।

দেশের গির্জাগুলোতে আজ বিশেষ প্রার্থনা করা হবে। ক্রিসমাস ট্রি সাজানো, সান্তা ক্লজের উপহার, স্বজনদের বাড়িতে ও বিনোদনকেন্দ্রে বেড়াতে যাওয়া আর রকমারি খাবার উপভোগের মধ্য দিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে সবাই দিনটি উদযাপন করবে। অনেক খ্রিস্টান পরিবারে তৈরি হবে বিশেষ কেক। ধর্মীয় গানের আসরও বড়দিনের অন্যতম অনুষঙ্গ। এ উপলক্ষে আজ সরকারি ছুটি।

এই বিভাগের আরও খবর