img

ওয়ালটন ফেডারেশন কাপের ৩০তম আসরের শেষ আটে যাওয়ার সুযোগ ছিল মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের সামনে। সেক্ষেত্রে শেষ ম্যাচে তাদের হারাতে হত শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবকে। সে লক্ষ্যে তারা এগিয়ে গিয়েছিলও। কিন্তু ধরে রাখতে পারেনি লিড। তাই জয়ও পাওয়া হয়নি সাদা-কালো জার্সিধারীদের। শেখ জামালের সঙ্গে মঙ্গলবার ১-১ গোলে ড্র করে গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নিতে হয়েছে মোহামেডানকে।

‘ডি’ গ্রুপে ৩ ম্যাচ থেকে ৫ পয়েন্ট ও গোল গড়ে এগিয়ে থেকে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বসুন্ধরা কিংস। সমান পয়েন্ট নিয়ে গোল ব্যবধানে পিছিয়ে থেকে গ্রুপ রানার্স-আপ হয়ে শেষ আটে জায়গা করে নিয়েছে শেখ জামাল। তিন ম্যাচ থেকে ১ হার, ১ জয় ও ১ ড্রয়ে ৪ পয়েন্ট সংগ্রহ করে বিদায় নিয়েছে মোহামেডান।

মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ম্যাচের ৩৩ মিনিটে লিড নিয়ে শেষ আটে যাওয়ার স্বপ্ন দেখছিল মোহামেডান। এ সময় মোহামেডানের গাম্বিয়ান মিডফিল্ডার ল্যান্ডিং দারবোয়ি ফ্রি কিক থেকে গোল করে এগিয়ে নেন দলকে।  তার গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় মতিঝিলের ক্লাবটি। বিরতির পর অবশ্য ম্যাচে সমতা ফেরায় শেখ জামাল। ৪৮ মিনিটে জামালের হয়ে গোলটি করেন লুসিয়ানো এমানুয়েল পেরেজ। বাকি সময়ে এই সমতা আর ভাঙেনি। কিন্তু এই সমতায় স্বপ্ন ভাঙে ২০০৯ সালে সবশেষ ফেডারেশন কাপের শিরোপা জেতা মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের।

ওয়ালটন ফেডারেশন কাপের চ্যাম্পিয়ন দল ৫ লাখ এবং রানার্স-আপ দল ৩ লাখ টাকা প্রাইজমানি পাবে। এ ছাড়া প্রতিটি দল ২ লাখ টাকা করে অংশগ্রহণ ফি পাবে।

ওয়ালটন ৩০তম ফেডারেশন কাপের ‘এ’ গ্রুপে ছিল - চট্টগ্রাম আবাহনী, আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ ও রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস সোসাইটি। ‘বি’ গ্রুপে ছিল - সাইফ স্পোর্টিং, ব্রাদার্স ইউনিয়ন ও টিম বিজেএমসি। ‘সি  গ্রুপে ছিল - ঢাকা আবাহনী লিমিটেড, শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র এবং ‘ডি’ গ্রুপে ছিল- শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব, বসুন্ধরা কিংস, মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব ও নোফেল স্পোর্টিং ক্লাব।

২৭ অক্টোবর থেকে ৬ নভেম্বর পর্যন্ত হল গ্রুপ পর্বের ম্যাচগুলো। এরপর ৮ নভেম্বর থেকে ১১ নভেম্বর পর্যন্ত হবে কোয়ার্টার ফাইনাল। ২১ ও ২২ নভেম্বর হবে দুটি সেমিফাইনাল। আর ২৪ নভেম্বর হবে ফাইনাল।

এই বিভাগের আরও খবর