Ads
img

 দাবদাহে জ্বলছে আমেরিকার একাধিক এলাকা। তীব্র গরমে প্রাণ হারিয়েছেন অনেকে। একই সময় ঠিক বিপরীত চিত্র দেখা যাচ্ছে ইউরোপের বিস্তীর্ণ এলাকায়। বন্যায় ভাসছে জার্মানি (Germany Flood), বেলজিয়ামের মতো দেশগুলি। বন্যায় ইতিমধ্যে মৃত্যু হয়েছে অন্তত ১৮৩ জনের। তাঁদের মধ্যে ১৫৬ জনই পশ্চিম জার্মানির বাসিন্দা।

গত কয়েকদিন ধরেই ভারী বৃষ্টি হচ্ছে দক্ষিণ ও পশ্চিম জার্মানির বহু এলাকায়। ফলে জলমগ্ম হয়ে পড়ে সেই সমস্ত এলাকা। এর মধ্যে আবার হড়পা বানের জেরে পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়। রবিবার সকাল পর্যন্ত শুধুমাত্র রিনেল্যান্ড-প্যালাটিনেট প্রদেশেই মৃত্যু হয়েছে ১১০ জনের। শনিবার পর্যন্ত সংখ্যাটা ছিল ৯৮। তবে সংখ্যাটা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছে পুলিশ। কারণ এখনও পর্যন্ত এই এলাকা থেকে ৬৭০ জন আহতকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। অনেকের হদিশ মিলছে না।

 

অস্ট্রিয়া সীমান্তে দক্ষিণ জার্মানির বাভারিয়া এলাকা থেকে ১ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে। এমন পরিস্থিতিতে অস্ট্রিয়ার বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীকেও প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে। কারণ, সে দেশেরও বিস্তীর্ণ এলাকা আপাতত জলের তলায়। এ প্রসঙ্গে অস্ট্রিয়ার চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান ক্রুজ উদ্বেগ প্রকাশ করে জানিয়েছেন, প্রবল ঝড়-বৃষ্টির জেরে অস্ট্রিয়ার বহু এলাকার প্রচুর ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এদিকে জার্মানি ও চেক রিপাবলিক সীমান্ত এলাকার নদীগুলিও ফুঁসছে। ফলে উদ্বেগ বাড়ছে প্রশাসনের।

গত কয়েক দিন ধরেই পশ্চিম ও দক্ষিণ জার্মানিতে অতিভারী বৃষ্টি চলছে। সেই বৃষ্টির জেরে দেশটির পশ্চিম এবং দক্ষিণ ভাগের এলাকাগুলিতে হড়পা বানের সৃষ্টি হয়। প্রবল বৃষ্টির জেরে আচমকাই বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হওয়ায় বহু এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়ে। নদীর পাড় ছাপিয়ে লোকালয়ে ঢুকে পড়ে বানের জল। প্রকৃতির এহেন তাণ্ডবে বহু বাড়িঘর ও গাড়ি ভেসে গিয়েছে। বহু জেলার সঙ্গে একেবারেই যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে। বহু জায়গায় রাস্তাঘাট, বাড়ি সব জলের তলায় এখনও। কোথাও কোথাও দেখা যাচ্ছে বন্যার জলের তোড়ে গাড়ি রাস্তায় উলটে পড়ে রয়েছে। 

এই বিভাগের আরও খবর