Ads
img

দেশে করোনা সংক্রমণের প্রায় ৯ মাস পরও ৩৫টি জেলায় নমুনা পরীক্ষাকেন্দ্র (ল্যাব) চালু করতে পারেনি সরকার। সরকারের পরামর্শক কমিটি ছয় মাস আগে করোনা শনাক্তে অ্যান্টিজেন টেস্ট চালুর সুপারিশ করলেও এখনো তা শুরু হয়নি। পরীক্ষাকেন্দ্র নেই এমন ১০টি জেলায় ডিসেম্বর মাসে অ্যান্টিজেন পরীক্ষা শুরু হবে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। আর বাকি ২৫টি জেলায় কবে নাগাদ অ্যান্টিজেন পরীক্ষা চালু হবে, তা এখনো অনিশ্চিত।

দেশে করোনার অ্যান্টিজেন ও অ্যান্টিবডি পরীক্ষা এখনো চালু না হওয়ায় হতাশা প্রকাশ করেছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। তাঁরা বলছেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর নমুনা পরীক্ষার ওপর নির্ভর করে প্রতিদিন আক্রান্তের যে সংখ্যা দেয়, প্রকৃত আক্রান্তের সংখ্যা তার চেয়ে বেশি। দিনে ২০ হাজার নমুনা পরীক্ষার পরামর্শ দিয়ে আসছিলেন তাঁরা। কিন্তু এখনো দিনে সর্বোচ্চ সাড়ে ১৮ হাজারের বেশি নমুনা পরীক্ষা হয়নি। গতকাল শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪ হাজার ১২টি নমুনা পরীক্ষা হওয়ার তথ্য দিয়েছে।

করোনা মোকাবিলায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা শুরু থেকে রোগী শনাক্তকরণের ওপর জোর দিয়ে আসছে। সংস্থাটির মতে, একজন শনাক্ত রোগীর বিপরীতে ১০ থেকে ৩০টি পরীক্ষা হলে তা পর্যাপ্ত। কিন্তু দেশে এখন পর্যন্ত একজন শনাক্ত রোগীর বিপরীতে পরীক্ষার হার ৬ শতাংশের কম। অন্যদিকে সরকার ৯ মাসেও আরটি–পিসিআর পদ্ধতির আওতা বাড়াতে পারেনি। তাই সংক্রমণ পরিস্থিতি বুঝতে অ্যান্টিজেন ও অ্যান্টিবডি পরীক্ষা একসঙ্গে শুরু করা জরুরি বলে মনে করেন জনস্বাস্থ্যবিদেরা।

এখন দেশে আরটি–পিসিআর এবং জিন এক্সপার্ট পদ্ধতিতে করোনা পরীক্ষা হচ্ছে। এ পদ্ধতিতে পরীক্ষার ফল পেতে সময় বেশি লাগে। আর অ্যান্টিজেন ও অ্যান্টিবডি পরীক্ষা করা যায় ১৫ থেকে ৩০ মিনিটে। সহজে, যেকোনো জায়গায়, যে কেউ, কম খরচে এটি করতে পারেন। কারও শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি রয়েছে কি না, সেটি অ্যান্টিজেন পরীক্ষার মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া যায়। আর করোনা থেকে যাঁরা সুস্থ হয়েছেন, তাঁদের শরীরে রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বা অ্যান্টিবডি তৈরি হয়েছে কি না, তা অ্যান্টিবডি পরীক্ষার মাধ্যমে জানা যায়।

করোনাবিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সাবেক উপাচার্য নজরুল ইসলাম বলেন, সরকার সব জেলায় আরটি–পিসিআর পরীক্ষাকেন্দ্র চালুর পর্যাপ্ত সময় পেলেও তা কাজে লাগাতে পারেনি। পরামর্শক কমিটি অ্যান্টিজেন ও অ্যান্টিবডি দুটি পরীক্ষাই চালুর সুপারিশ করার পরে অনেকটা সময় চলে গেছে। যেসব জেলায় পরীক্ষাকেন্দ্র নেই, সেগুলোতে ব্যাপক পরিসরে অ্যান্টিজেন পরীক্ষা দ্রুত চালু করতে হবে।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা বলেন, আগামী সপ্তাহে অ্যান্টিজেনভিত্তিক পরীক্ষার জন্য কর্মীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া শেষ হবে। আরটি–পিসিআর পরীক্ষার ব্যবস্থা নেই, এমন ১০টি জেলায় আগামী মাসে অ্যান্টিজেন পরীক্ষা শুরু হবে। অ্যান্টিজেন পরীক্ষার মানসম্মত কিট আনা হচ্ছে, পর্যায়ক্রমে সব জেলায় অ্যান্টিজেন পরীক্ষা শুরু করা হবে।

৩৫ জেলাতেই পরীক্ষাকেন্দ্র নেই

এখন দেশে ১১৮টি পরীক্ষাকেন্দ্রে করোনা শনাক্তকরণ পরীক্ষা হচ্ছে। এর মধ্যে ১১৬টি কেন্দ্রে আরটি–পিসিআর পদ্ধতিতে পরীক্ষা হচ্ছে। আর বাকিগুলোয় মূলত যক্ষ্মা শনাক্তে ব্যবহৃত কার্টিজ বেজড নিউক্লিক অ্যাসিড অ্যামপ্লিফিকেশন টেস্ট (সিবি ন্যাট) পদ্ধতি ব্যবহার করা হচ্ছে।

পরীক্ষাকেন্দ্রগুলোর মধ্যে ঢাকায় ৬৮টি। আর ঢাকার বাইরে ২৮টি জেলায় আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতে পরীক্ষার ব্যবস্থা রয়েছে। ঢাকা বিভাগের ১৩টি জেলার মধ্যে পরীক্ষার ব্যবস্থা রয়েছে ৮টি জেলায়। খুলনা বিভাগের ১০ জেলার মধ্যে ৪টিতে পরীক্ষাকেন্দ্র রয়েছে। সিলেট বিভাগের ৩টি পরীক্ষাকেন্দ্রই সিলেট জেলায় অবস্থিত। রংপুর বিভাগের ৮ জেলার মধ্যে রংপুর ও দিনাজপুরে পরীক্ষাকেন্দ্র আছে। বরিশাল বিভাগের ৬ জেলার মধ্যে বরিশাল ও ভোলায় পরীক্ষাকেন্দ্র রয়েছে।

গত ১৮ জুন করোনাবিষয়ক নিয়মিত বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তৎকালীন মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ জানিয়েছিলেন, যত দ্রুত সম্ভব সরকারি ব্যবস্থাপনায় জেলা পর্যায়ে আরটি–পিসিআর পরীক্ষা শুরু হবে। সেদিন দেশের ৪৩ জেলায় করোনা পরীক্ষাকেন্দ্র ছিল না। এরপর সাড়ে ৫ মাস পার হলেও নতুন করে মাত্র ৮ জেলায় পরীক্ষাকেন্দ্র চালু হয়েছে।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা বলেন, সব জেলায় আরটি–পিসিআর পরীক্ষা শুরুর মতো পরীক্ষাগার, সক্ষমতা নেই। তবে সব জেলায় আরটিপিসিআর পরীক্ষা চালু করতে সরকারের উদ্যোগ রয়েছে। যেখানে সম্ভব হচ্ছে সেখানেই পিসিআর পরীক্ষা শুরু করা হচ্ছে।

জিরোআওয়ার২৪/এমএ

এই বিভাগের আরও খবর