Ads
img

অভিনেতা আজিজুল হাকিমকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়েছে। গতকাল সন্ধ্যায় বমি বাড়তে শুরু করলে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শুরুতে ডায়রিয়া ও পরে নমুনা পরীক্ষায় তাঁর কোভিড-১৯ ধরা পড়ে। শুরুতে চিকিৎসক স্বজনদের পরামর্শে তিনি বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আজ সকালে তাঁকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়েছে। প্রথম আলোকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন আজিজুল হাকিমের স্ত্রী নাট্যকার জিনাত হাকিম।

আজিজুল হাকিমের পরিবারের সবাই করোনায় আক্রান্ত। স্ত্রী  জিনাত হাকিম এবং ছেলে রেদওয়ান হাকিম করোনায় আক্রান্ত হলেও তাঁরা এখন কিছুটা সুস্থ। শ্বশুরবাড়িতে থাকা তাঁদের মেয়ে নাযার নমুনা পরীক্ষা করতে দেওয়া হয়েছে। গতকাল অসুস্থ শরীর ও কাঁপা কাঁপা কণ্ঠে আজিজুল হাকিম জানান, শরীর ভীষণ দুর্বল। ডায়রিয়াকে পাত্তা না দেওয়ায় দুর্বলতা বেড়েছে।

চলতি সপ্তাহের শুরুতে হঠাৎ ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হন অভিনেতা আজিজুল হাকিম। প্রথমে বিষয়টিকে গুরুত্ব দেননি তিনি। প্রাথমিক চিকিৎসায় কিছুটা ভালো বোধ করলেও শারীরিকভাবে ভীষণ দুর্বল হয়ে পড়েন তিনি। তারপরই পর্যায়ক্রমে অসুস্থ হয়ে পড়েন জিনাত হাকিম।

৯ নভেম্বর নমুনা পরীক্ষা করালে তাঁর কোভিড-১৯ পজিটিভ ধরা পড়ে। পরদিন আজিজুল হাকিমের দুর্বলতা বেড়ে গেলে ছেলেসহ তিনিও নমুনা পরীক্ষা করান। পরীক্ষার ফল জানায়, তারা দুজনও কোভিড-১৯ পজিটিভ। আজিজুল হাকিম বলেন, ‘জ্বর মাপলাম কিছুক্ষণ আগে। সকাল থেকে বেশ কয়েকবার বমি হয়েছে।' তিনি বলেন, ‘কদিন আগে বাসার পানির লাইন থেকে নষ্ট পানি আসছিল। ভুল করে সেটাই ফিল্টার করে খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ি। ডায়রিয়ায় শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে আর শ্বাসকষ্ট বাড়তে থাকে। পরে কোভিড-১৯ টেস্ট করিয়ে দেখি, পজিটিভ এসেছে। পানির লাইন ঠিক করতে বাইরের লোকেরা আসবে, কবেই-বা ঠিক হবে, এসব চিন্তা করে এক আত্মীয়র বাড়িতে চলে গিয়েছিলাম সবাই। পরে ফিরে এসে সবার অবস্থা আরও খারাপ হয়ে যায়।'

জিনাত হাকিম জানিয়েছিলেন, দুপুর থেকে আজিজুল হাকিমের জ্বর নিয়ন্ত্রণে থাকলেও শ্বাসকষ্ট ও দুর্বলতা বাড়ছিল। চিকিৎসক স্বজনদের সঙ্গে সার্বক্ষণিক পরামর্শ করছিলেন তিনি। অবস্থা বুঝে আজিজুলকে হাসপাতালে নেওয়ার কথা ভাবছিলেন। অবস্থা ক্রমেই খারাপ হওয়ায় সন্ধ্যার পর তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করাতে বাধ্য হন।

গত জুন মাস থেকে সীমিত পরিসরে ঘরের বাইরে বের হতে শুরু করেছিলেন হাকিম দম্পতি। তখন থেকেই খুব সাবধানে চলাফেরা করতেন তাঁরা। কীভাবে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলেন, তা এখনো বুঝে উঠতে পারছেন না তাঁরা। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় চলমান সব নাটকের শুটিং বাদ দিতে হয়েছে আজিজুল হাকিমকে। একটি নাটকের কাজে ঢাকার বাইরে যাওয়ার কথা থাকলেও সেই শুটিংও বাতিল করেছেন জিনাত হাকিম।

আজিজুল হাকিম টিভি নাটকে অভিনয় করছেন প্রায় ৪০ বছর ধরে। তার আগে তিনি আরণ্যক নাট্যদলে কাজ করেছেন। আজিজুল হাকিম ১৯৮১ সালে বিটিভিতে তালিকাভুক্ত হন অভিনয়শিল্পী হিসেবে। ‘এখানে নোঙর’ নাটকে ছোট একটি চরিত্র দিয়ে টিভি নাটকে অভিনয় শুরু। তারপর বিটিভির জনপ্রিয় ধারাবাহিক নাটক ‘কোন কাননের ফুল’-এ অভিনয় করেন অলি চরিত্রে। তাঁর বিপরীতে ছিলেন শমী কায়সার। এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন ‘কোন কাননের ফুল’ আমার অভিনয় জীবনের গল্প বদলে দেয়। অভিনয়জীবনে নাটকটি আমার সুখের স্মৃতি হয়ে আছে। মঞ্চে তিনি ‘ওরা কদম আলী’, ‘ইবলিশ’, ‘গিনিপিগ’, ‘আগুনমুখা’, ‘খেলা খেলা’, ‘মানুষ’ প্রভৃতি নাটকে বছরের পর বছর অভিনয় করেছেন। ‘পদ্মানদীর মাঝি’র মতো আলোচিত সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি। একসময় বাংলাদেশ বেতারেও নিয়মিত অভিনয়শিল্পী ছিলেন

জিরোআওয়ার২৪/এমএ

এই বিভাগের আরও খবর